আদালতের রায়ের পরেও জোর পূর্বক জমি দখলের চেষ্টার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ, কেশবপুর (যশোর) ॥

কেশবপুরে এক অসহায় পরিবারের পক্ষে আদালতের রায়ের পরেও প্রতিপক্ষ সেই জমি জোর পূর্বক দখলের চেষ্টা করছে। জোর পূর্বক অবৈধ জমি দখলের চেষ্টার প্রতিবাদে ওই অসহায় পরিবারের পক্ষে আবুল কাশেম গত ২২ জানুয়ারী  দুপুরে কেশবপুর নিউজক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আবুল কাশেম অভিযোগ করে বলেন, পাত্রপাড়া  গ্রামের মৃত এরশাদ আলী শেখের ছেলে আব্দুল মালেকের সাথে দীর্ঘদিন যাবত ৭৯ নং সাবদিয়া মৌজার  ৬৯ নং এসএ খতিয়ান ও ০৭ নং হাল খতিয়ানের এসএ ০৭ নং দাগে ও হাল ১০নং দাগের ২২শতক জমির মধ্যে ০৬.০৫ শতক জমি নিয়ে আদালতে মামলা চলছিল। অবশষে গত ১৯ জানুয়ারী আদালত ওই পরিবারের নুর জাহান, সালেহা খাতুন, আনোয়ারা খাতুনের পক্ষে ঐ মামলার বিচারের রায় প্রদান করে। আদালতের রায়ের পরেও প্রতিপক্ষ আব্দুল মালেক ও তার ভাড়াটিয়াদের নিয়ে উক্ত জমি বার বার জোরপূর্বক দখল নেওয়ার চেষ্টা করে।

সংবাদ সমেলনে লিখিত বক্তব্যে আবুল কাশেম বলেন, মামলা বিচারাধীন অবস্থায় আব্দুল মালেক ও তার ভাড়াটিয়াদের নিয়ে গত ১৬ ডিসেম্বর ঐ জমি দখল নিতে গেলে আবুল কাশেমের পরিবার বাধা প্রদান করলে আব্দুল মালেকের নেতৃত্বে তার ভাড়াটিয়ারা আবুল কাশেমের পরিবারের উপর লাঠি সোটা  লোহার রড ও চাইনিজ কুড়াল দিয়ে হামলা চালিয়ে আবুল কাশেম ও তার পরিবারকে গুরুতর আহত ও জখম হয়। পরে ভাড়াটিয়ারা লক্ষাধিক টাকার স্বর্ণালংকার লুট করে মহিলাদের শ্লীলতাহানী করে। ওই ঘটনায় নুর ইসলাম বাদি হয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছিল। ঐ দিন আহতদের কেশবপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আবুল কাশেম আরো বলেন, চলতি মাসের প্রথম দিকে মালেকের নেতৃত্বে মনজুরা বেগম ২০ হাজার টাকা সমমূল্যের একটি নারকেল গাছ কেটে নেয়। বাধা প্রদান করলে জীবন নাশের হুমকি প্রদান করে। এছাড়া বিভিন্ন সময় মালেক গংরা ঐ পরিবারের প্রতি ভয়ভীতি প্রদান করে আসছে। আনোয়ারা বেগম সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন । সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্য পত্রপত্রিকায় প্রকাশের মাধ্যমে জমি সংক্রান্ত বিষয়টি সমাধানে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেছে তারা।

You May Also Like