মণিরামপুরে গুলিবিদ্ধ দুই লাশ উদ্ধার || নিহতদের পরিচয় পাওয়া গেছে

আব্দুর রহিম রানা, যশোর ||

যশোরের মণিরামপুরে গুলিবিদ্ধ দুইটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এদের একজন হলেন কেশবপুরের নতুন মূলগ্রামের ওলিয়ার রহমানের ছেলে বিল্লাল হোসেন (৩০), অপরজন অভয়নগরের রানাগাতী গ্রামের ওহাব ফকিরের ছেলে মনিরুল ইসলাম ফকির। সোমবার দুপুরে থানা পুলিশ যশোর সদর হাসপাতালের ঠান্ডাঘর থেকে স্বজনদের কাছে লাশ দুই হস্তান্তর করেন। এর আগে বেলাসাড়ে ১১টার দিকে স্বজনরা লাশের দাবি নিয়ে থানায় আসেন। এরপর পুলিশ পর্যবেক্ষণ করে লাশের পরিচয় নিশ্চিত হন। নিহত বিল্লালের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় অস্ত্রসহ তিনটি মামলা রয়েছে। আর মনিরুলের বিরুদ্ধে নিজ থানায় দুইটি হত্যা, একটি অস্ত্র ও একটি চাঁদাবাজি মামলা রয়েছে বলে প্রাথমিক ভাবে মণিরামপুর থানা পুলিশ নিশ্চিত হয়েছেন।

রোববার সকাল আটটার দিকে যশোর-চুকনগর আঞ্চলিক মহাসড়কের বেগারীতলার সাতিয়ানতলা বন্ধন নার্সারী সংলগ্ন পাকা সড়কের পাশ থেকে পুলিশ লাশ দুইটি উদ্ধার করে সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এর আগে ভোর ৬টার দিকে স্থানীয়রা লাশ দুইটি পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেন।

মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন বলেন, ‘লাশ দুইটির দাবি নিয়ে আজ (সোমবার) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে স্বজনরা থানায় আসেন। সবকিছু নিশ্চিত হয়ে দুপুরে লাশ দুইটি তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

ওসি বলেন, ‘খবর নিয়ে জানতে পেরেছি, বিল্লাল অজ্ঞান পার্টির সদস্য। তার বিরুদ্ধে অস্ত্রসহ তিনটি মামলা ও মনিরুলের বিরুদ্ধে দুইটি হত্যা, অস্ত্র ও চাঁদাবাজিসহ মোট চারটা মামলা রয়েছে।’

ওসি ধারণা করেন, অভ্যন্তরীন কোন্দলকে কেন্দ্র করে কোন সন্ত্রাসী গ্রুপ ওই দুই যুবককে গুলিকরে হত্যা করে লাশ সাতিয়ানতলায় এনে ফেলে রেখে গেছে। তবে, বেগারীতলা এলাকার লোকজন জানান, শনিবার রাত দুইটার দিকে একটি গাড়ি যশোরের দিক থেকে বেগারীতলা বাজারে এসে থামে। পরমুহূর্তে গাড়িটি আবার যশোরের দিকে ফিরে যায়। কিছুক্ষণের মধ্যে চারটি গুলির শব্দ শুনতে পান এলাকাবাসী।

You May Also Like