পুষ্টিতে ভরপুর পানিফলঃ ক্যান্সার প্রতিরোধে অতুলনীয়

কেশবপুর নিউজ ডেস্ক ||

পুষ্টিতে ভরপুর পানিফল আমরা অনেকেই পানিফল চিনি। এটি একটি বর্ষজীবী জলজ উদ্ভিদ থেকে পাওয়া ফল।শহরে এ ফল খুব একটা দেখা না গেলেও গ্রামে এর ব্যাপক কদর রয়েছে। সবুজ রঙের ছোট এই ফলটি খেতে খুব একটা সুস্বাদু না হলেও এর পুষ্টিগুণ আমাদের অনেক উপকার করে থাকে। এই ফলের স্বাদ অনেকটা পানসে। কাঁচা অথবা সিদ্ধ করে এই ফল খাওয়া যায়। এর উপরের পুরু খোসার ভেতরে সাদা অংশ খেতে হয়। শরীরের পুষ্টির ঘাটতি পূরণ, শরীর গঠন, রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে পানিফল।

আসুন আজ জেনে নিই পানিফলের পুষ্টিগুণ এবং এর উপকারীতা সম্পর্কে।

পুষ্টিগুণঃ দেখতে খুব সাধারণত হলেও পানিফল কিন্তু অনেক পুষ্টিতে ভরপুর। দেখা গেছে প্রতি ১০০ গ্রাম পানিফলে আছে খাদ্যশক্তি ৬৫ কিলোক্যালরি, জলীয় অংশ ৮৪.৯ গ্রাম, খনিজ পদার্থ ০.৯ গ্রাম, খাদ্যআঁশ ১.৬ গ্রাম, আমিষ ২.৫ গ্রাম, চর্বি ০.৯ গ্রাম, শর্করা ১১.৭ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ১০ মিলিগ্রাম, আয়রন ০.৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি১ ০.১৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি২ ০.০৫ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ১৫ মিলিগ্রাম। এছাড়াও এতে আছে জিঙ্ক, আয়রন, সোডিয়াম, পটাশিয়ামের মত উপকারী সব উপাদান। যা আমাদের জন্য ভীষণ উপকারী।

উপকারীতাঃ

১। পানিফল ফলে থাকা পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামের মত উপকারী খনিজ উপাদান আমাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এছাড়াও এতে থাকা ভিটামিন সি আমাদের রক্তনালীর সংকোচন প্রসারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে থাকে। পানিফল আমাদের রক্তে মিশে থাকা এল ডি এল বা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। আর কোলেস্টরলের মাত্রা কমে গেলে আমাদের হার্টের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে।

২। পানিফল খেলে আমাদের ক্যান্সারের মত মরণঘাতি রোগ আশঙ্কা কমে। বিশেষ করে ওরাল ক্যান্সার, কলোরেক্টাল ক্যান্সার, পাকস্থলী ক্যান্সার এবং ওভারিয়ান ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা অনেক কমে যায়। এই ফল আমাদের চোখের জন্য অত্যান্ত উপকারী। তাই প্রতিদিন অল্প করে এ ফল খেলে আমাদের দৃষ্টিশক্তির অনেক উন্নতি হয় এবং একই সাথে রাতকানা রোগ থেকে চিরতরে রেহাই পাওয়া যায়। এছাড়াও চোখের এলার্জি সহ অন্যান্য চোখের রোগের প্রকোপ কমাতে এটি অনেক কার্যকরী।

৩। পানিফল অতিরিক্ত ওজন কমাতে খুব ভাল কাজ করে। এছাড়াও পানিফলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার বা আঁশ থাকায় এটি আমাদের পরিপাকতন্ত্রের কার্যকারীতা বৃদ্ধি করে হজম শক্তি বাড়ায়। ফলে গ্যাস বা পেটের সমস্যা কমে যায়। এ ফলে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকায় এটি খেলে আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। আর এর ফলে আমরা বিভিন্ন রকম সিজিনাল অসুখ থেকে মুক্তি পাই।

৪। পানিফলে আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি। আর এই ভিটামিন বি এর একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান ‘ইন্সনিটোল’ যা আমাদের নতুন করে চুল গজাতে সাহায্য করে এবং চুল পড়া প্রতিরোধ করে। তাই পানিফল খেলে আমাদের চুল হয় স্বাস্থ্যউজ্জ্বল ও সুন্দর। এই ফলে কোনো চর্বি বা কোলস্টেরল নেই। তাই ফল খেলে আমাদের মুটিয়ে যাওয়ার ভয় নেই। বরং দেহের ওজন কমাতে এর ভূমিকা অনেক।

৫। পানিফলের শাঁস শুকিয়ে রুটি বানিয়ে খেলে অ্যালার্জি ও হাত-পা ফোলা রোগ কমে যায়। বিছা বা পোকা কামড় দিলে আহত স্থানে পানিফল পিষে লাগালে ব্যথা দ্রুত সেরে যায়। বমিভাব, হজমের সমস্যা দূর করতে পানিফলের জুড়ি নেই। অনিদ্রা, দুর্বলতা দূর করতে কাজে দেয় এই ফল। পানিফল ঠাণ্ডালাগা, সর্দিতেও স্বস্তি দিতে পারে। ব্রঙ্কাইটিস, অ্যানিমিয়া কমাতে পারে এই ফল।

You May Also Like