মণিরামপুর শহরের যানজট নিরসনে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন ইউএনও আহসান উল্লাহ

আব্দুর রহিম রানা||

যশোরের মণিরামপুর পৌর শহরের যানজট নিরসনে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান উল্লাহ শরিফী। পৌর শহরের যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের দুই পাশের দখলমুক্ত করতে ইতোমধ্যে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ইউএনও’র এমন নান্দনিক উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন পৌরবাসীসহ সর্বস্তরের জনগণ। উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের পরও দখলকারীরা মহাসড়কের দুই পাশের অবৈধ ন্থাপনা সরাতে গড়িমসি করছিলো। প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের প্রতি দলমত নির্বশেষে পৌরবাসীর অকুন্ঠ সমর্থন থাকায় নিজ উদ্যোগে অবৈধ স্থাপনা সরাতে বাধ্য হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দিনভর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান উল্লাহ শরিফীর নেতৃত্বে এ্যাসিল্যান্ড সাইয়েমা হাসান ও মণিরামপুর থানা পুলিশ এবং আনসার ব্যাটেলিয়নের সদ্যরা পৌর শহরের যশোর-সাতক্ষীরা মহাসড়কের দুই পাশের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযানে নামেন। ওই সময় দখলকারিরা নিজ উদ্যোগে অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেবেন মর্মে সময় প্রার্থনা করেন। এ সময় অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে তিনি ১০ মার্চ শেষ সময় নির্ধারণ করে দেন। কিন্তু প্রশাসনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অবৈধ দখলকারিদের অনেকেই তাদেরস্থাপনা না সরালে এদিন সকালে ইউএনও’র নির্দেশে এ্যাসিল্যান্ড সাইয়েমা হাসান ফের অভিযানে নামেন।

এক পর্যায় প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের কারনে রোববার বিকেলের পর থেকে মহাসড়কের দুই পাশের অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিতে দেখা যায়। এর ফলে পৌর শহরের দীর্ঘদিনের যানজট নিরসনের কারনে নাগরিকদের ভোগান্তি কমবে বলে অনেকে আশা করছেন। এ ধরনের উদ্যোগকে সহযোগিতা করতে সাধারন নাগরিকদের আরো বেশি সমর্থন থাকবে বলে অনেকেই মনে করেন ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ শরিফী প্রতিবেদকে বলেন, পৌরবাসীর ভোগান্তি লাঘবে আইন-শৃংখলা কমিটির সিদ্ধান্ত কার্যকরের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

এজন্য তিনি সকলের অরো বেশি সহযোগিতা কামনা করেছেন।

You May Also Like