যশোরে শিশু ইমরান হত্যা মামলায় দুইজনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ প্রদান

আব্দুর রহিম রানা, যশোর ||

যশোর সদর উপজেলার ঘোড়াগাছা গ্রামের শিশু ইমরান হত্যা মামলায় দুইজনকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছে স্পেশাল জজ আদালত। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বিচারক মোহাম্মদ ফারুক হোসেন এ রায় দেন। একই সাথে এ মামলার অপর দুই আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন বিচারক।

দন্ডিতরা হলেন-ঘোড়াগাছা গ্রামের আন্দাউল্লাহ আজিজের ছেলে সবেদুল ও আব্দুল মজিদের ছেলে আব্দুল হাকিম। খালাস প্রাপ্তরা হলেন- একই গ্রামের দাউদ মোড়লের ছেলে ইদ্রিস আলী ও খোড়া কাশেমের ছেলে ইকবাল হোসেন।

স্পেশাল জজ আদালতের পিপি এসএম বদরুজ্জামান পলাশ জানিয়েছেন, ২০০১ সালের ২৪ এপ্রিল খুন হয় শিশু ইমরান (১২)। তার বাবার সাথে মা কহিনূর বেগমের বিবাহ বিচ্ছেদের পর আসামি সবদুলকে পুনরায় বিয়ে করে তার মা। বিয়ের পর থেকে প্রথম ঘরের সন্তান ইমরানকে কহিনূর বেগমের তার দ্বিতীয় স্বামী সবদুলের প্রায় ঝগড়া বিবাদ হতো। ঝগড়ার সময় সবদুল একাধিকবার ইমরানকে হত্যা করার হুমকি দেয়।

কহিনূর বেগম সন্তানের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে সবদুলের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটায়। এতে ক্ষিপ্ত হয় সবদুল। বিচ্ছেদের প্রায় ৭ মাস পর ২০০১ সালের ২৪ এপ্রিল বিকেলে ইমরান খেলা করতে বের হয়ে আর বাড়ি না ফেরায় তার নানার বাড়ির লোকজন খোঁজাখুজি শুরু করে। একপর্যায়ে গ্রামের কুদ্দুস মোল্লার পানের বরোজের পাশ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ইমরানের নানা হায়াৎ আলী মল্লিক সবদুল, আব্দুল হাকিম, ইদ্রিস আলী ও ইকবাল হোসেনকে আসামি করে কোতোয়ালী থানায় হত্যা মামলা করেন।

পিপি আরো জানান, দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে আজ স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক সবদুল ও আব্দুল হাকিমকে মৃত্যুদন্ড ও ২০ হাজার টাকা করে জরিমানার আদেশ দেন।

এছাড়া ইদ্রিস আলী ও ইকবাল হোসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের বেকসুর খালাস দেন।

রায় ঘোষণা শেষে দন্ডিত আব্দুল হাকিমকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন এবং সবদুল পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির নির্দেশ দেন বিচারক।

You May Also Like