কেশবপুর-সাগরদাঁড়ি সড়কটি চলাচলের অযোগ্য ॥ মধুমেলার পূর্বে সংস্কারের দাবি

কেশবপুর নিউজ ডেস্ক ||

যশোরের কেশবপুরের সাগরদাঁড়ি সড়কটি চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ বছর সংস্কার না করায় ভারি পণ্যবাহি ট্রাক-লরি চলাচল করায় সড়ক জুঁড়ে বড় বড় গর্ত তৈরি হয়েছে। ওই সব গর্তে প্রতিদিন যানবাহন আটকে যাওয়ায় পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। গর্তে ভরা সড়কটি জরুরী ভিত্তিতে সংস্কার না করা হলে আগামী মধুমেলার আনন্দ ম্লান হয়ে যাওয়ার আংশকা রয়েছে।

জানা গেছে, কেশবপুর-সাগরদাঁড়ি ১৪ কিলোমিটার সড়ক দিয়ে প্রতিদিন পৌরসভার একাংশ, মজিদপুর, হাসানপুর, বিদ্যানন্দকাটি ও সাগরদাঁড়ি ইউনিয়নের মানুষ চলাচল করেন। সাতক্ষীরা যেতে হাইওয়ের চেয়ে প্রায় ১৫ কিলোমিটার পথ কম হওয়ায় পণ্যবাহি ট্রাক ও অন্যান্য বাহন এ সড়ক দিয়েই যাতায়াত করে থাকে। এছাড়া সাগরদাঁড়ি মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের জন্মভূমিতে দেশী-বিদেশী পর্যটক ও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কবি ভক্তরা, স্কুল-কলেজসহ অসংখ্য প্রতিষ্ঠান বনভোজনে আসায় সড়কটি সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ণ এ উপজেলায়। গত কয়েক বছর সড়কটি সংস্কার না করায় ক্ষত-বিক্ষত সড়কটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে।

গত ২ বছর পূর্বে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাগরদাঁড়ি মধুমেলায় প্রধান অতিথি হয়ে আসেন। তার আসার সংবাদে উপজেলা প্রকৌশল অফিসের উদ্যোগে সড়কটির বড় বড় গর্তগুলি খুড়ে ইটের খোয়া দেওয়া হয়। এরপর মন্ত্রী হেলিকপ্টারে সাগরদাঁড়ি আসার খবরে সড়কটির সংস্কার কাজ আর শেষ হয়নি। পরবর্তীতে ইটের খোয়া উঠে যেয়ে আবারও গর্তের সৃষ্টি হয়। বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

সড়কটি বর্তমান পায়ে হেটেও চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। জরুরী ভিত্তিতে সড়কটি সংকার করা প্রয়োজন। সংস্কার না করা হলে আগামী মধুমেলার আনন্দ ম্লান হয়ে যাওয়ার আংশকা রয়েছে।

You May Also Like